ঢাকা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮, ১ পৌষ ১৪২৫
---
---
Demo Newspaper
প্রচ্ছদ » জাতীয় » আইসিইউতে রাজধানী ঢাকা: বেঁচে বের হবে তো?
সোমবার ● ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৫
Decrease Font Size Increase Font Size Email this News Print Friendly Version

আইসিইউতে রাজধানী ঢাকা: বেঁচে বের হবে তো?

---রোগী মরণাপন্ন অবস্থায় গেলেই তাকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়। সেখানে সারাক্ষণ চিকিৎসক, নার্স, ওষুধ, অক্সিজেনসহ রোগীকে বাঁচানোর দরকারি সবকিছুই থাকে। রাজধানী ঢাকা নাকি এখন আইসিইউতে আছে। বলেছেন ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক। অর্থাৎ ঢাকার অবস্থা মরণাপন্ন। তবে বিপদ হচ্ছে, ঢাকা যে আইসিইউতে আছে, তার চিকিৎসক হচ্ছেন মেয়র এবং যিনি এই রোগীর পরিচর্যার জন্য যে চিকিৎসাবিদ্যার প্রয়োজন, তা পড়েননি। আনিসুল হকের এই কথার মধ্যে বিনয় আছে, নিজের অক্ষমতার প্রকাশ আছে। কিন্তু ঢাকাবাসীর জন্য ভয়ের কথা হচ্ছে, এমন আইসিইউ থেকে ঢাকা বেঁচে বের হবে তো?

মুমূর্ষু ঢাকার পরিচর্যার দায়িত্বে দুই মেয়র আছেন ঠিকই, কিন্তু শুধু এই দুই চিকিৎসক দিয়ে ঢাকাকে বাঁচানো যাবে না। চিকিৎসকের মূল কাজ রোগীর সমস্যা কী, তা বের করা। কিন্তু রোগ সারাতে যেসব ওষুধ-পথ্য, স্যালাইন, অক্সিজেন, অস্ত্রোপচার বা এর জন্য দরকারি সরঞ্জাম লাগবে, সেসবের যদি জোগান না থাকে, তবে ভালো চিকিৎসকও রোগীকে বাঁচাতে পারবেন না। ঢাকা এমন এক আইসিইউতে আছে, যেখানে এসবের কোনো জোগান নেই। দুই মেয়র ঢাকাকে বাঁচাবেন কীভাবে!
মনে আছে, আনিসুল হক নির্বাচনের আগে বলেছিলেন ঢাকার সমস্যাগুলো কী, সেটা জানা। তাই নির্বাচনের আগে তাঁর মূল স্লোগান ছিল ‘সমাধান যাত্রা’। নির্বাচনের মাস পাঁচেক পর তিনি নিশ্চয় বুঝতে পারছেন যে ঢাল-তলোয়ার ছাড়া এই সমাধান যাত্রা কত কঠিন। রাজধানী ঢাকার মূল সমস্যাগুলো আসলেই জানা ও চিহ্নিত। তাহলে সেগুলো সমাধান বা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া যাচ্ছে না কেন? সেটাও জানা। ঢাকার মূল সমস্যা ঢাকার একক দায়িত্বে কেউ নেই। সবার দায়িত্ব, মানে আসলে কারোরই দায়িত্ব নেই। আবার ঢাকাকে কেউ ছাড়তেও চায় না, সবাই কোনো না-কোনোভাবে ঢাকার নানা দায়িত্বে যুক্ত থাকতে চান। এমনকি পুরো দেশ চালানোর দায়িত্ব যে সরকারের, তারাও ঢাকার দায়িত্ব কাউকে দিতে ভরসা পায় না। পাছে নিজের কর্তৃত্ব না খর্ব হয়।
আসুন, ঢাকার একটি সমস্যার কথাই বিবেচনায় নিই। ঢাকার ১ নম্বর সমস্যা কী? এই প্রশ্ন করলে যে-কেউই বলবেন, যানজট। এত যানজটের মূল কারণ কী? সেটাও অন্তত সংশ্লিষ্টদের জানা। ঢাকায় ব্যক্তিগত গাড়িতে চলে মাত্র ৬ শতাংশ মানুষ। অথচ তাদের গাড়িগুলো দখল করে রাখে নগরের ৮০ ভাগ রাস্তা। কী দরকার? গণপরিবহনব্যবস্থার। বিশেষজ্ঞরা বলেন, একটি বহুমাত্রিক গণপরিবহনব্যবস্থা। বাস, মেট্রো, রেল, নৌপথ—সব মিলিয়ে একটি সমন্বিত ব্যবস্থা। ধরে নিলাম এ জন্য সময় লাগবে, কিন্তু একটি পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা নেওয়া এবং পর্যায়ক্রমে তার বাস্তবায়নের কথা যদি বিবেচনায় নেওয়া হয়, তবে এই কাজটি করবে কোন কর্তৃপক্ষ? সড়ক বিভাগ ও সেতু মন্ত্রণালয়, পূর্ত মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, রেলপথ মন্ত্রণালয়, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন, নাকি রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)? এত কর্তৃপক্ষের ভিড়ে ঢাকার জন্য আসলে কেউই নেই।
ঢাকায় এখন অনেক ‘উন্নয়ন’কাজ চোখে পড়বে। অনেক বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলেছি, কিন্তু কেউই আশ্বাস দিতে পারেননি যে এসব হয়ে গেলে পরিস্থিতির খুব উন্নতি হবে। সরকারের একেক সংস্থা এসব উন্নয়নকাজের একেকটি বাস্তবায়ন করছে। ঢাকাকে দেখভালের যেহেতু কোনো একক কর্তৃপক্ষ নেই, ফলে কোনো সমন্বয়ও নেই। মহাখালীতে উড়ালসড়ক আছে, তৈরি হচ্ছে মৌচাক-মালিবাগ উড়ালসড়ক। আবার তৈরি হচ্ছে বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা বিআরটি। বিশেষজ্ঞদের মতে, বিআরটির যে তিনটি রুট ঠিক করা হয়েছে, তার অন্তত দুটি সাংঘর্ষিক হবে মহাখালী উড়ালসড়ক ও নির্মাণাধীন মৌচাক-মালিবাগ উড়ালসড়কের সঙ্গে। এই দুটি উড়ালসড়কের কারণে বিআরটির কার্যকারিতা নষ্ট হবে।
ঠিকঠাক পরিকল্পনা বা সমন্বয় না থাকলে যা হওয়ার তা-ই হচ্ছে। নানা অবকাঠামো বানানো হচ্ছে, কিন্তু ফল পাওয়া যাচ্ছে না। ঢাকা সেই অসাধারণ এক শহর, যার চারপাশে নদী রয়েছে। অথচ নগরের পরিবহনব্যবস্থায় নৌপথের এই সম্ভাবনা কাজে লাগানো গেল না। এই নদীগুলোর ওপর কোনো চিন্তাভাবনা ছাড়াই কিছু সেতু তৈরি হয়েছে। এগুলো এমন নিচু করে বানানো হয়েছে যে এর নিচ দিয়ে অনেক নৌযান চলাচল করতে পারে না।
এভাবেই ঢাকা নিয়ে যে যার যার মতো করে ভেবেছে আর নানা কিছু করছে, তা ঢাকার কাজে লাগুক বা না লাগুক। ঢাকার আজকের মুমূর্ষু দশা বা আনিসুল হকের ভাষায় আইসিইউতে নিয়ে আসার মতো অবস্থায় তো আর এমনিতেই হয়নি! ঢাকাকে নিবিড় পরিচর্যা করে, সুস্থ করে তুলতে হলে যেমন দক্ষ চিকিৎসক লাগবে, তেমনি লাগবে একটি পূর্ণাঙ্গ আইসিইউ। এই আইসিইউ হচ্ছে একটি শক্তিশালী একক কর্তৃপক্ষ, যার হাতে ঢাকাকে নিয়ে পরিকল্পনা করার ও তা বাস্তবায়নের ক্ষমতা থাকবে। তা না হলে ঢাকাকে বাঁচিয়ে রাখা কঠিন হবে বলে মনে হয়।


মেডিকেল ভর্তির ফল বাতিল চেয়ে করা রিট খারিজ

দাম কমা শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের পাঁচটিই মিউচুয়াল ফান্ড


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
পরীক্ষামূলকভাবে সিম নিবন্ধন শুরু হয়েছে
এসডিজি অর্জনে অর্থায়নই বড় চ্যালেঞ্জ: সিপিডি
কোনালের ‘সুখ থামে না’
আব্বা মুক্ত থাকলে আমাদের ছিল ডাবল ঈদ
মেডিকেল ভর্তির ফল বাতিল চেয়ে করা রিট খারিজ
যে পোশাক অদৃশ্য করে দেবে
সবচেয়ে ধনী দেশ এখন কাতার
চাই জেন্ডার সমতা ও নারীর ক্ষমতায়ন
ক্রোয়েশিয়ার দিকে ছুটছে অভিবাসন-প্রত্যাশীরা
লন্ডন পৌঁছেছেন খালেদা জিয়া